Monday, 3 September 2012

সেক্রেটারী (একটি ভিন্ন স্বাদের বাংলা চটী)



গল্প ২) সেক্রেটারী



সিঙ্গাপুরের ফ্লাইট ধরে কলকাতায় ফেরার সময় ফ্লাইটটা দুঘন্টা লেট্। যাওয়ার সময় ফ্লাইট ঠিক টাইমেই পোঁছেছিল। কিন্তু ফেরার সময় অকারণে দেরী। এখন বাড়ী না ফিরে সোজা শীলার ফ্ল্যাটে উঠলেই মনটা চাঙা হয়ে যাবে। এয়ারপোর্টে পৌঁছে ড্রাইভার কে বলব সোজা গল্ফগ্রীণ। তারপরে একটু ফ্রেশ হয়ে নিয়ে শীলার সাথে লাভিং। এই চারদিনের একটু journey শেয়ারিং। At last দুবোতল বিয়ারের সাথে সাথে ফুল আওয়ার এনজয়িং। শীলা কখনও অমিতকে Bore হতে দেবে না। এই কাজের বাইরে শীলার শরীরের থেকে এইটুকু তো অমিতের প্রাপ্য। বউকে দিয়ে যেটা হয় না, শীলা ওটা ষোলআনা পুষিয়ে দেয়। অমিতকে যেটা মুখ ফুটে চাইতে হয় না। শীলা ওটা অন্তর থেকে দেয়। ভালবাসা না অন্যকিছু? অমন চোখ ধাঁধানো শরীর থাকতে ভালবাসার কদর কে দেয়? মানিব্যাগে পয়সা না থাকলে ও সব ভালবাসা দুদিনে উবে যায়। মেয়েরা আজকাল টাকা চায়। বিয়ে না করেও পুরুষের সাথে ঘন্টার পর ঘন্টা সময় কাটাতে পারে, যদি তার পয়সার অভাব না থাকে। মানিব্যাগে টাকা চাই। তাকে উপযুক্ত লাইফস্টাইল দেওয়ার সামর্থ থাকা চাই। অমিতকে যেটার জন্য লোকে খোসামোদ করে। ওর কত টাকা আছে, বাড়ী আছে, আছে উপযুক্ত ব্যাঙ্ক ব্যালেন্স। টাকার জন্য অমিতকে কোনদিন হাপিত্যেশ করতে হবে না। সমাজে প্রতিষ্ঠিত ব্যাক্তি। ব্যাবসার কাজে যাকে মাসে দুবার করে ব্যাংকক সিঙ্গাপুর ভিসিট করতে হচ্ছে। তার আবার পয়সার অভাব কিসের? শুধু একটু রিফ্রেশ করার টাইম। শীলাকে চারদিন দেখতে পারে নি। মনটা উসখুস করছে। এই চারদিনের শূণ্যস্থানটা আজকেই পূরণ হবে যদি না শীলা ফ্ল্যাট ছেড়ে অন্য কোথাও ঘুরতে না গিয়ে থাকে।

শীলা শীলা আর শীলা। সারাদিন ধরে অমিতের মুখে কতবার যে শীলা নামটা উচ্চারিত হয় তার কোন ইয়ত্তা নেই। কাজের মধ্যেও শীলা আবার কাজের বাইরেও শীলা। শীলা ছাড়া দিনটা যেন এগোতে চায় না। ওর পার্সে একটা শীলার ফটো থাকে। বাইরে গেলে পার্সখুলে ফটোটাকে মাঝে মাঝে চোখে দেখে। শীলার ঠোটে চুমু খায়। ওর বুকের খাঁজটার উপর আঙুল বোলাতে থাকে। সবই ছবিতে। পাশ থেকে কেউ নজর করলে সতর্ক হয়। তখন ওটা আবার মানিব্যাগে ঢুকিয়ে রাখে।

একজন পাস থেকে একদিন মজা করে বলেছিল- is she your wife?

No she is my Secretary. My only loving Secretary.

অমিতকে প্রচুর খাটতে হয়েছে এবার। দুরাত্রি হোটেলে থেকে ল্যাপটপে প্রেসেনটেশন তৈরী করা। সারা রাত্রি ঘুম নেই। সকালবেলা মনে হয়েছিল আর চোখ খুলতে পারবে না। শীলার একটা ফোনই ওকে চাঙা করে দিয়েছিল। ফোনে বলেছিল তুমি না বলেছ আমাকে একটা গাড়ী কিনে দেবে। এবারের বিজনেস ট্রিপ তাহলে সাকসেস করে এস। তোমার কাছ থেকে সুখবরটা যেন পাই। অমিত ওকে ফোনে সুখবরটা জানিয়েছে। ফোন করে খুশীতে শীলাকে অনেক্ষণ ধরে চুমু খেয়েছে। পেয়েছে ফোনে শীলার মন মাতানো চুমু। পায়েনি শুধু শীলার রক্তমাংসে গড়া শরীরটাকে। যাকে না পেলে ভাল লাগে না কিছুই। থেকে যায় অতৃপ্ত এক বাসনা।

দমদম এয়ারপোর্টে প্লেনটা ল্যান্ড করছিল। অমিত মোবাইল থেকে শীলাকে ধরার চেষ্টা করল।

-হ্যালো-

-হ্যালো কে শীলা?

-হ্যাঁ শীলা বলছি।

-তুমি কি ফ্লী আছ ডারলিং? আমি জাস্ট কলকাতায় ল্যান্ড করলাম। ফ্ল্যাটে আছ?

-আছি। তুমি কখন আসছ?

-এই একটু পরেই বেরোব এয়ারপোর্ট থেকে। তারপরেই তুমি আর আমি একসাথে। একটু ওয়েট কর ডারলিং। আমি আসছি এক্ষুনি।

-তাড়াতাড়ি এস। তোমাকে ভীষন মিস করছি। প্লীজ এস।

-আমি আসছি ডারলিং। তুমি কাছে ডাকছ। আমি না এসে পারি?

অমিত লাইনটা কেটে দিল। ও এক্ষুনি শীলাকে চাইছে। অনায়াসেই চলে যেতে পারবে ওর ফ্ল্যাটে। শরীরে শরীর ঠেসে শীলাকে শুষে নিয়ে ভিজিয়ে নিতে পারবে শরীরটাকে। আর গাড়ীতে যেতে মাত্র একঘন্টা। ওকে চারদিন মিস্ করেছে। এখন শীলার বুকের উপর শুয়ে একটা অদ্ভুত সুখানুভূতি। শীলার সঙ্গর জন্য অমিত মরীয়া। শীলাও তাই। যে আনন্দ ওর কাছ থেকে পাওয়া যায় তারজন্য মনঃপুত শীলাকে ছেড়ে কতক্ষণ থাকা যায়।



অমিত এক্ষুনি এসে পড়বে। শীলা আর থাকতে পারছে না। বুকবার করা একটা টাইট গেঞ্জী পড়ে ওর জন্য ওয়েট করছে। পছন্দের নারীকে বিছানায় নিয়ে শোওয়া যেন কত সহজ। শীলাকে বেছে কোন ভুল করেনি অমিত। ওর শরীরটাকে খেতে পেরেছে। একাধিকবার শোওয়া হয়েছে আর কি চাই?

হোটেলের একটা তিনকামরার স্যুটে শীলার ইন্টারভিউ নিয়েছিল অমিত। প্রথম দর্শনেই তীব্র আকর্ষন। কিছুটা খোলামেলা পোষাক। শরীরের অনেক অংশই অনাবৃত। দেখা মাত্রই মাথাটা ঘুরে গেল। অ্যাপোয়েন্টমেন্ট লেটার দিতে আর লেট করেনি অমিত। একদম সঙ্গে সঙ্গেই।

প্রথম দিনই শীলাকে একটু কাছে টানার চেষ্টা। অফিস থেকে ফেরার সময় শীলাকে যেচে লিফ্ট। তখন শীলার নতুন ফ্ল্যাটে আসা হয় নি। গাড়ীতে শীলা পাশাপাশি। শরীরটার দিকে নজর করতে করতে  অমিতই ওকে বলল-আমার সঙ্গে ডিনার করবে একটা ভালো রেস্টুরেন্টে।

শীলা সন্মতি দিল। আপনি বললে না করতে পারি আপনাকে?

অমিতের খুব ভালো লাগছে। রেস্টুরেন্টে শীলাকে নিয়ে হূইস্কিতে চুমুকের পর চুমুক। ওকে একটু অফার করতে শীলা বলল-এক পেগ খেতে পারি। তার বেশী না।

ওকে পাওয়ার আকাঙ্খায় মুখটা রক্তিম হয়ে উঠছে। যেন এই মেয়েটা এসে অফিসের চেহারাটাকেই বদলে দিয়েছে।

ডিনার সেরে বিল সই করে অমিতের গাড়ীতে তখনও শীলা। ওর সহচরী। একটা দুর্লভ সুযোগ অমিতের সামনে। ওকে উসখুস করতে হোল না। শীলাই সাহস করে দিল ওকে এগোতে। গাড়ী চালাতে চালাতে ঐ অবস্থায় শীলার বুকে মাঝে মাঝে চুমু খাওয়া। যেন একটা উচ্ছ্বাস ফেটে পড়ছে।

-এই তোমাকে চুমু খেলাম কিছু মনে করলে?

-না।

-তোমার এত লাভলী ফিগার বিয়ে করনি?

-না। আপনি?

-করেছি। তবে তোমাকে আমার আলাদা রকম ভালো লেগেছে।

-আপনার ওয়াইফ জানতে পারলে?

-আমি জানি তুমি এটাই বলবে। বউ এর ব্যাপারে যে আমি আর অতটা আগ্রহী নই।

-তাহলে আপনি?

-শীলা আজ থেকে আমাকে আপনি নয়। আজ থেকে তুমি। আমার অফিস। আর অফিসের বাইরে তোমাকে নিয়ে একটা আলাদা জগত। শীলা তুমি যদি আমাকে ভালবাস আমি কিন্তু তোমায় রাজরানী করে রাখব।

শীলা অমিতকে জড়িয়ে ধরে ওর ঠোটে চুম্বন করেছে। ওকে আরো অগ্রসর হতে দিয়ে ওর শরীরে সাহস জুগিয়েছে। চুম্বনে শরীরটা তেঁতে আগুন। বাধ্য হয়ে গাড়ী চালানো থামিয়ে দিয়েছে অমিত। শীলা যেন পরের পদক্ষেপ কি হবে অমিতকে বুঝিয়েও দিয়েছে।

-আমি একটা ফ্ল্যাট কিনে নেব তোমার জন্য। সেখানে সব ব্যবস্থা থাকবে। তোমাকে কিচ্ছু চিন্তা করতে হবে না। তুমি আজ থেকে আমার একান্ত, ব্যাক্তিগত, আমার পার্সোনাল সেক্রেটারী। আমার সময় অসময়ে তুমিই হবে আমার চিরকালের সাথী। শীলা আমি আর একটা চুমু খেতে পারি তোমার বুকে?

শীলাকে বাড়ীতে ড্রপ করার সময় অমিত বেশ তৃপ্ত। ও কাল থেকে একটা নতুন দিনের সূচনা করতে চাইছে। একটা অন্যরকম সন্মন্ধের সূত্রপাত ওর মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে।



অমিতকে ওয়েলকাম করল শীলা। এয়ারপোর্ট থেকে সোজা শীলার ফ্ল্যাটে। একঘন্টার মধ্যেই এসে হাজির। শীলা আগে থেকেই ব্যাবস্থা করে রেখেছে অমিতের জন্য ড্রিঙ্কস্। সাথে পানীয় গ্লাস আর জলের আইস্ বকস্। বাদাম আর স্যালাড আর সাথে গরম গরম কাবাব আর চিলি ফিশ।

-তোমাকে চারদিন চুমু খেতে পারিনি। পাগল হয়ে গেছি। রাতে ঘুমোতে পারিনি। সারাক্ষন তোমার মুখটা ভেসেছিল চোখের সামনে। আগে একটা চুমু দাও। তারপরে অন্য কিছু হবে।

-এত টায়ার্ড হয়ে এসেছ। চুমু দিলেই সব ক্লান্তি দূর হয়ে যাবে?

-ইয়েস মাই ডারলিং। কেবল শীলাই আমার ঠোটে চুমু দিয়ে আমার সব ক্লান্তি দূর করে দিতে পারে। চুমু আর শরীরটার সুখটাকে সম্বল করেই তো বেঁচে আছি।

শীলা চুমু দিয়েছে অমিতকে। শুধু চুমুই নয়। ওর বুকের গেঞ্জীটা ওপরে তুলে উদ্ধত বুকদুটো অমিতের মুখের সামনে ধরে মিনিট পাঁচেক ধরে বোঁটাদুটোকে পেতে রেখেছিল ঠোটের মধ্যে। শীলার নিপল্ চুষতে চুষতে অমিতের ছোটবেলায় শৈশবের কথা মনে পড়ে যায়। একহাতে একটা স্তন ধরে আর একটা মুখে নিয়ে চুষতে চুষতে সেই ছোটবেলায় ফিরে যাওয়া। বোঁটাটাকে জিভের গভীরে নিয়ে প্রবলভাবে টানতে টানতে অমিত ছাড়তেই চাইছিল না শীলাকে।

শীলা বলল-এই তুমি ফ্রেশ হবে না? বার্থরুমে গরম জল আছে চান করে নাও। ভাল লাগবে।

গেঞ্জীটাকে পুরো তুলে দিয়ে আবার শীলার বুকশুদ্ধু পেট আর নাভী চাটতে চাটতে অমিত শীলাকে আবদার করল ও সাথে না গেলে অমিতও যাবে না বার্থরুমে।

কি অদ্ভূত শরীর তাড়নার সুখ। এ সুখে শীলাই যেন ওর ইচ্ছাপূরণের রসদ। শীলাকে চারদিন বাদে পাওয়ার আনন্দে অমিত এখন উন্মাদ।

অমিত বার্থরুমে ঢুকে কমোডের উপর বসেছে। শীলাকে লক্ষ করছে। নগ্ন শরীরে যৌন তাড়নায় পাগল পাগল অবস্থা। বাথটবের জলে ডুবিয়ে দিয়েছে শীলা ওর শরীরটা। মাইদুটো দুহাতে ধরে উষ্ন জলে ভিজিয়ে নিচ্ছিল শরীরটা। অমিতকে যেন এবার যৌনকামনার সুখ দেওয়ার অপেক্ষায়। যে সুখ শীলা অমিতকে দিতে পারবে তা অন্যকেউ দিতে পারবে না।

বাথটব থেকে উঠে এসে কমোডের উপর অমিতের কোলে চেপে বসল একটু পরেই। ওর নগ্ন শরীরটাকে মেলে ধরেছে অমিত। ক্ষুধার্ত লিঙ্গটাকে ঢুকিয়ে দিতে চাইছে ফাটলের ভেতরে। শীলার ভিজে পিঠটাকে দুহাতে চাপ দিয়ে ওর স্তনদুটোকে নিয়ে এল ঠোটের খুব কাছেই।

শীলা একটা স্তনের বোঁটা অমিতের ঠোটের মধ্যে ঢুকিয়ে দিল। নগ্ন শরীরটাকে নিয়ে এবার অমিতের লিঙ্গের উপর ওঠানামা করতে লাগল। যেন পেনিসটা ফাটলের মধ্যে ছটফটানি শুরু করে দিয়েছে। ক্রমশ কাঠের মতন হয়ে যেতে লাগল।

অমিতের জিভটা এবার ওর মাই এর বোঁটা চুষে নিপল সাক করার কাজটা শুরু করে দিয়েছে। নিজেকে সমর্পণ করে অভূতপূর্ব যৌনলীলার সুখ দিচ্ছে শীলা অমিতকে। ও উঠছিল নামছিল। অমিত হাতদুটো পেছন থেকে ধরে শীলার শরীরটাকে নিয়ন্ত্রন করছিল। কখনও পাছায় খেলা করছিল হাত কখনও পিঠে। অমিত শীলাকে ঠাপাতে ঠাপাতে ওর স্তনের বোঁটাটা জিভ দিয়ে চাটছিল আয়েশ করে। পেনিসটা শীলার ফুটোয় আঘাত করতে করতে তোলপাড় করে দিচ্ছিল ভেতরটা।

বিপরীত বিহারে অন্যরকম সুখ। চারদিন অমিতকে না পাওয়ার জ্বালানী। শীলার মধ্যে এত আগুন আছে আগে তো জানা ছিল না। অমিত বুঝতে পারছিল এবার শীলা এতটাই সুখ পাচ্ছে যে অন্যমনস্কতার দরুন অমিত শীলার বোঁটা থেকে মুখ তুললেই শীলা বারে বারে স্তনের বোঁটাটা ঢুকিয়ে দিচ্ছিল অমিচের ঠোটের ভেতরে।

অমিত আবেগে বলল-তোমাকে চোদাটা যে কতখানি কামোদ্দীপক ভাষায় প্রকাশ করা যায় না শীলা।

ওর কোলের উপর চড়ে শীলা শরীরটা পুরো মিশিয়ে দিতে চাইছিল অমিতের সাথে। নিজেকে পুরো সঁপে দিচ্ছিল বারবার।

ঠাপানোর সুখ নিতে নিতে অমিত শীলার ঠোটটায় চুমুর পর চুমু খেয়ে যাচ্ছে। ঠোটে নিয়ে চুষছে। কামড়ে ধরছে। জিভটা প্রবিষ্ট করে দিচ্ছে শীলার ঠোটের ফাঁকে।

যেন অনেকখানি বড় হয়ে লিঙ্গটা ঢুকে গেছে শীলার যৌনফাটলে। ওর ইচ্ছে হচ্ছিল ভেতরটা ফাটিয়ে দেয়। কামের আগুন আর দমিয়ে রাখা  যাচ্ছে না। উত্তেজনা ধরে রাখা যাচ্ছে না। বীর্যটা বেরিয়ে এসে শীলার ভেতরটা ভাসিয়ে দিল। যেন দেহের ভেলায় দুজনে ভাসছিল তখন।



দুজনে একসাথে ড্রিঙ্ক করে চিলি ফিস খেয়ে আবার বিছানায়। শীলার নগ্নবুকে হাত রেখে অমিত বলছে এবার সিঙ্গাপুরে অনেক কাজ হোল যেন। নেক্সট বারে ভাবছি তোমায় নিয়ে যাব সাথে।

-সত্যি বলছ না মন রাখার জন্য বলছ?

-সত্যি বলছি।

-এই একটা কথা বলব তোমাকে?

-বল।

-দুদুবার Abortion করিয়েছি এর আগে। এবার?

-কি?

-I am again pregnant.

-ও Really?

-হ্যা এবার তুমি কি চাও বল?

-বলব?

-বল।

-এবার আমি চাই আমার শীলা সত্যি সত্যি আমার বাচ্চার জন্ম দিক। Happy?

-ওঃ অমিত। আজ তুমি আমার মনের কথাটা বললে। I love U.

শীলা অমিতের ঠোটটা ঠোটে নিয়ে ছাড়তে চাইছিল না আনন্দে। ওকে গভীর সোহাগ মাখানো চুমু খেতে খেতে বলল- এই আজ তুমি বাড়ী যাবে না আমার ফ্ল্যাটে থাকবে?

-থাকব থাকব থাকব। কাল তোমার সাথে একসাথে আবার অফিসে।  কি হ্যাপি?

শীলা আনন্দ চেপে রাখতে পারছে না। অমিতকে শিশুর মতন বুকে আগলে রইল অনেক্ষণ। বিছানায় তখন একটু বাদেই আবার একটা ঝড় তোলার অপেক্ষায় প্রস্তুতি নিচ্ছিল দুজনে।

 ভালো লাগলে জানাবেন।  অপেক্ষায় রইলাম।

No comments:

Post a Comment